ঢাকা | সোমবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৭ খ্রীষ্টাব্দ | ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
ভারত-বাংলা

‘সিরিয়াল কিলার’ নান্নু ভারতে খুন

বাংলাপেইজ ডেস্ক : প্রকাশিত হয়েছে: ২৭-০৮-২০১৭ ইং । ২০:৪৩:৪৩

যশোরের ‘সিরিয়াল কিলার’ মোখলেছুর রহমান নান্নু ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বনগাঁয় খুন হয়েছেন। শনি ও রোববার ভারতীয় গণমাধ্যমে এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। শুক্রবার ভারতীয় পুলিশ বনগাঁর চড়ুইগাছি এলাকার জিয়ালা খাল থেকে নান্নুর গলিত লাশ উদ্ধার করে। স্ত্রী লাভলি ইয়াসমিন নিহতের লাশ শনাক্ত করেছেন।
নিহত নান্নু যশোর সদর উপজেলার শ্যামনগর গ্রামের সাইফুল ইসলাম সাফুর ছেলে। তার বিরুদ্ধে যশোর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি জিল্লুর রহমান মিন্টুসহ অন্তত ২০টি হত্যা মামলা রয়েছে।
প্রায় দেড় বছর ধরে ভারতে পালিয়ে ছিলেন নান্নু। বনগাঁর বোয়ালদহ গ্রামে জমি কিনে বাড়িও করেছিলেন। সন্ত্রাসীরা তাকে হত্যা করে খালের কচুরিপানার মধ্যে লাশ ফেলে যায়।
ভারতীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদে জানা গেছে,  প্রথমে খালের পানিতে পাট পঁচাতে গিয়ে এক ব্যক্তি কচুরিপানার নিচে মৃতদেহটি দেখেছিলেন। তার কথায় গ্রামবাসী গুরুত্ব দেয়নি। শুক্রবার স্থানীয় কয়েকজন মৃতদেহ ভাসতে দেখে পুলিশে খবর দেয়। পরে গলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।
শুক্রবার বিকালে বনগাঁ মহকুমা হাসপাতাল মর্গে গিয়ে নান্নুর স্ত্রী মৃতদেহ শনাক্ত করেন। তিনি বলেন, ‘আমার স্বামীর বাঁ-পায়ের কড়ে (কনিষ্ঠ) আঙুল কাটা ছিল। উদ্ধার হওয়া ব্যক্তিরও কড়ে আঙুল কাটা।’
থানায় স্বামী হত্যার অভিযোগ করেছেন নান্নুর স্ত্রী লাভলী ইয়াসমিন। তিনি স্বামী সন্ধান না পেয়ে পাসপোর্টে ভারতে যান। সেখানে গিয়ে থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন।
জমি কিনে ভারতে বাড়িও করেছিলেন নান্নু
উত্তর চব্বিশ পরগনার পুলিশ সুপার সি সুধাকর ভারতীয় গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ‘খুনের মামলায় তদন্ত চলছে।’
তদন্তে পুলিশ জানতে পেরেছে, সীমান্তের ওপার থেকে নান্নুর বাড়ির মালিক সোহরাবের সঙ্গে খুনের চুক্তি হয়েছিল। দুষ্কৃতীদের দিয়ে বৃহস্পতিবার রাতে নান্নুকে খুন করা হয়।
এমনকি খুনের রাতে নান্নুর সঙ্গেই ছিলেন সোহরাব। বনগাঁর বোয়ালদহ গ্রামে তার বাড়িতে দেড়বছর ধরে ভাড়া থাকতেন নান্নু। ওই গ্রামে জমি কিনে বাড়ি তৈরি করছিলেন নান্নু।
জমি কিনতে পঞ্চায়েতের অনুমতি নিতে না হলেও বাড়ি করতে অনুমতি লাগে। এেেত্র বাড়ি  তৈরির জন্য নান্নু পঞ্চায়েত থেকে  কোনো অনুমতি নেননি বলে দাবি করেছেন স্থানীয় ঘাটবাওর পঞ্চায়েতের প্রধান জেসমিন আরা খাতুন।
স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, মাস তিনেক আগে জমি কিনে বাড়ি তৈরি শুরু করেন নান্নু। মাঝে-মধ্যে এখানেই থাকতেন। কয়েক দিনের মধ্যে পাকাপাকিভাবে বাড়িতে উঠে আসার কথা ছিল।
নিহত নান্নুর একটি ভারতীয় আধার কার্ড উদ্ধার করেছে পুলিশ। সেখানে নাম আছে ‘নান্নু মণ্ডল’। বাড়ির ঠিকানা দেওয়া হয়েছে বনগাঁর জয়পুর গ্রামে। আধার কার্ডটি নকল না আসল পুলিশ তা খতিয়ে  দেখছে।
হোটেল বয় থেকে সিরিয়াল কিলার
নান্নু ১৯৮৬ সালে যশোর শহরের রবীন্দ্রনাথ (আরএন) রোডে একটি আবাসিক হোটেলে বয়ের কাজ করতেন। সেখান থেকেই তার অপরাধ জগতে প্রবেশ। এক সময় হোটেল ব্যবসা ছেড়ে মাদক ব্যবসায় নেমে পড়েন নান্নু।
আর্থিক অবস্থার পরিবর্তন হলে অল্পদিনের মধ্যে শ্যামনগরের সর্বহারা দলের নেতা ইউনুস আলী ইনো ও কেরো নজরুলে বাহিনীতে যোগ দেন। শুরু হয় আন্ডারওয়ার্ল্ডে যাত্রা। তার দতায় সন্তুষ্ট হয়ে সর্বহারা দলের আরেক নেতা শরিফুল তার দলে ভেড়ান নান্নুকে।
শরিফুল বাহিনীর প্রধান কিলার ও সেকেন্ড ইন কমান্ডের দায়িত্ব পান নান্নু। ১৯৯৭ সালের দিকে পুলিশের হাতে শরিফুল নিহত হলে তার বাহিনীর নিয়ন্ত্রণ নেন নান্নু। শরিফুলের নাম মুছে দিয়ে বাহিনীর নাম দেন ‘মিয়া বাহিনী’। এলাকার ছিঁচকে সন্ত্রাসী, মাদকসেবী ও বিক্রেতাদের নতুন সদস্য করেন।
এরপর ১৯৯৭ সালে ভাড়াটে খুনি হিসেবে আবির্ভূত হন নান্নু। রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব, মতার প্রভাব ও ব্যক্তি দ্বন্দ্বের জেরে তাকে হত্যা মিশনে ভাড়ায় ব্যবহার করা হয়। জেলা শীর্ষ নেতাদের আশ্রয়ে বেপরোয়া হয়ে ওঠেন নান্নু। তার বিরুদ্ধে অন্তত ২০টি হত্যা মামলা রয়েছে।
আলোচিত হত্যাকাণ্ড
সিরিয়াল কিলার নান্নুর হাতে অন্তত ২০ জন খুন হয়েছেন। এরমধ্যে  ছয়টি হত্যা মামলায় প্রধান আসামি নান্নু। আলোচিত হত্যাকাণ্ডের মধ্যে রয়েছে ২০১৬ সালের ৩১ সেপ্টেম্বর চৌগাছার পাশাপোল ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কাশেম, ২০১৩ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর চৌগাছার সিংহঝুলি ইউপি চেয়ারম্যান ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি জিল্লুর রহমান মিন্টু, ২০১৪ সালের ২৯ নভেম্বর সদর উপজেলার কাশিমপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সদস্য বাবু, একই সালের ২৯ মার্চ কাঠ ব্যবসায়ী বিএনপি কর্মী ইদ্রিস আলী হত্যাকাণ্ড।
এছাড়াও আরও বেশ কয়েকটি হত্যাকাণ্ডে নান্নুর সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ পাওয়া যায়। সেগুলো হলো- ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার বাদুরগাছা গ্রামের গুরুদাস, একই গ্রামের মিন্টু, বারোবাজার আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুর রউফ, সুবর্ণসরা গ্রামের মোমিন, যশোর সদরের মথুরাপুর গ্রামে চকম আলী, ইছালি গ্রামের কোহিনুর, সাজিয়ালি গ্রামের আনিস, হাশিমপুর গ্রামের জয়নাল ও লিটু।

এসব মামলায় গ্রেফতার এড়াতে নান্নু ভারতে পালিয়ে যান। শেষ পর্যন্ত সেখানেই খুন হন এই সিরিয়াল কিলার।
ডিআর/৮৪

শেয়ার করুন
সর্বশেষ খবর ভারত-বাংলা
  • ভারতে যাত্রীবোঝাই বিমানে বলিউড অভিনেত্রীর যৌন হেনস্তা
  • সব রেকর্ড ছাড়িয়ে যাবে সালমানের ‘টাইগার জিন্দা হ্যায়’ ছবি
  • ভারতের রাজধানী দিল্লি মারাত্মক দূষণে বিপর্যস্ত: সব স্কুল বন্ধ ঘোষণা
  • ঢাকা ছাড়লেন অরুণ জেটলি
  • ‘সিরিয়াল কিলার’ নান্নু ভারতে খুন
  • মাশরাফি ও জয়াকে বর্ষসেরা বাঙালির পুরষ্কার দিলো কলকাতার এবিপি
  • দার্জিলিঙে ভাষার আন্দোলনে উত্তপ্ত পাহাড়
  • ভারতের বাবরি মসজিদ ধ্বংসের মামলা: অভিযুক্ত হলেন বিজেপির তিন শীর্ষ নেতা
  • ধর্ষণের অভিযোগে হিন্দু ধর্মগুরুর পুরুষাঙ্গ কর্তন
  • ‘পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি ক্ষমতায় এলে বাংলাদেশ সীমান্ত সিল করা হবে’
  • তিস্তার বদলে আবারও তোর্সার কথাই বললেন মমতা
  • ফের ঢাকা আসছেন ভারতীয় সেনাপ্রধান
  • ‘তিন তালাক নিয়ে সরকার কারও কাছে মাথা নোয়াবে না’
  • কলকাতায় বঙ্গবন্ধুর মুর্তি সরানোর দাবির প্রতিবাদে সরব মুসলিমরাই
  • পানি মাঙ্গা লেকিন ইলেক্ট্রিসিটি মিলা: শেখ হাসিনা
  • আমাকে কেন দেশে ঢুকতে দিচ্ছেন না?
  • প্রণবের সঙ্গে ৭১’র স্মৃতিচারণ, প্রশংসায় সোনিয়া
  • তিস্তায় পানি নেই এমন যুক্তি মমতার, বিকল্প প্রস্তাব
  • ৪৫০ কোটি ডলার ঋণসহায়তা দেবে ভারত
  • বাংলাদেশ-ভারত ২২ চুক্তি সই
  • এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।