ঢাকা | মঙ্গলবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৭ খ্রীষ্টাব্দ | ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
ঢাকা হবে সম্পূর্ণ নিরাপদ শহর জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষনায় গোপালগঞ্জে বিক্ষোভ সিরিয়া থেকে সেনা সরিয়ে নিচ্ছে রাশিয়া নিউ ইয়র্কে হামলা : উদ্বেগে বাংলাদেশি অভিবাসীরা ঘুষ কেলেঙ্কারিতে বাংলাদেশি ব্যবসায়ী ও সাবেক ডেপুটি-মেয়রের নাম নতুন প্রকল্পে বদলে যাচ্ছে ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ব্রিটিশ রাজপ্রাসাদের প্রাচীরে উঠায় এক যুবক গ্রেফতার: শর্তসাপেক্ষে মুক্তি বাংলাদেশের দুই নেত্রী শেখ হাসিনা ও বেগম খালেদা জিয়ার লড়াইয়ের ইতি কাতার-সৌদি আরবে খালেদা জিয়ার সম্পদের খবর সর্ম্পণ মিথ্যা বানোয়াট: মধ্যে প্রাচ্যে বিএনপি আগামীকাল ফ্রান্স ডেমনস্ট্রেশনে  যোগ দিচ্ছে যুক্তরাজ্য বিএনপির  ২ শতাধিক  নেতাকর্মী
মুক্তমত আবদুল কুদ্দুস

সাইদুর এবং..

প্রকাশিত হয়েছে: ১২-১০-২০১৭ ইং । ১৫:৩৭:০৩

তিনি সাইদুর রহমান। রাজমিস্ত্রীর কাজ করেন। বাড়ি দিনাজপুরের বিরামপুর। গত পরশু ঢাকা উদ্যানের সামনের বাস্তায় দাঁড়িয়ে আছেন অনেকক্ষণ। সন্ধ্যা সাড়ে আটটা তখন। জিজ্ঞাসা করলাম, কেন দাঁড়িয়ে আছেন? তিনি যার অধীনে কাজ করেন, সেই লোকটি আজকের মজুরী নিয়ে আসবে, সেজন্য অপেক্ষা। অর্থাৎ আজকের কাজের মজুরী পাবেন।

জিজ্ঞাসা করে জানলাম তার কাছে কোন টাকা নেই, ঐ লোকটি টাকা নিয়ে আসলেই হোটেল থেকে খাবার কিনে খাবে। খাবার খেতে ৮০ টাকার মতো লাগবে। বললাম যদি ঐ লোকটি না আসে, তাহলে কী করবেন? বারবার বললেন, আসবে। আমি কথা বলছি বিভিন্ন বিষয় নিয়ে। একটু বাদেই ফোন এলো, ঐ লোকটি আজ আসতে পারবেন না, কোনভাবে ম্যানেজ করে নিতে বলেছেন। সাইদুর রহমান আজ সকালেই জমানো সব টাকা গ্রামের বাড়িতে পাঠিয়ে দিয়েছেন। তার হাতে কোন টাকাই নেই।

আমি একশো টাকা দিতে চাইলাম খাবার খাওয়ার জন্য। তিনি বললেন আমি জীবনে অপরিচিত কারো নিকট থেকে খাবার টাকা নেই নাই, আজও নিতে পারব না, আমাকে মাফ করবেন। আসলে এই অযাচিত সাহায্যকে তিনি ভিক্ষা মনে করছেন, তাই নিতে অস্বীকার করলেন। অনেক বলার পর বললেন, আমি ধার নিতে পারি, কালকে টাকা পেলেই পাশের দোকানে রেখ দেব।

আপনি যেহেতু এদিকে প্রায়ই আসেন, টাকাটা ঐ দোকান থেকে নিয়ে নিবেন। এই শর্তে রাজী হলেই কেবল তিনি ধার হিসেবে একশো টাকা নিবেন। আমি রাজী হলে ফুটপাথের টঙের দোকানে নিয়ে আমাকে দেখিয়ে বললেন, আমি কাল একশো টাকা রেখে দেব, এই ভাই আসলে টাকাটা তাকে দিয়ে দেবেন। গতকাল গিয়েছিলাম ওদিকে। টঙের দোকানে জিজ্ঞাসা করতেই বললেন, আপনার একশো টাকা গতকাল সন্ধ্যায় রেখে গিয়েছেন, বলেই একশো টাকা আমাকে দিলেন। অনেক মূল্যবান এই একশো টাকা। এই টাকার সাথে জড়িয়ে আছে অনেক বিশ্বাস ও মর্যাদাবোধ।

লেখক : এনজিও কর্মকর্তা

#ম.র/বাংলাপেইজ

শেয়ার করুন
সর্বশেষ খবর মুক্তমত
  • আসুন ভালোবাসার লড়াই করি
  • রাস্তা ঘাটের বেহাল দশার জন্য দায়ী কারা?
  • বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে আপনার করনীয়
  • সাইদুর এবং..
  • ‘বঙ্গশার্দূল’ ওসমানী অবহেলিত কেন ?
  • "খন্দকার মোশতাক চক্রের প্রেতাত্নারা নানা মুখোশে রাজনীতি করছে সর্বত্র"
  • নোবেল কি পাবেন শেখ হাসিনা?
  • ‘ঈদ’-‘ইদ’ বানান বিতর্ক, বাস্তবতা ও একটি প্রস্তাব
  • বাঙ্গালি দ্বারা রোহিঙ্গা নির্যাতন..!!!
  • হায় হেফাজত!
  • ‘আমরা সামরিক ভাষায় কথা বলতে চাই’
  • জনগণের হাতে দেশের মালিকানা ফিরিয়ে দেয়ার দৃঢ় প্রতিজ্ঞা বিএনপি’র
  • কঠিন অগ্নি পরীক্ষার মুখোমুখি দেশ
  • প্রকৃতির সর্বশ্রেষ্ঠ সৃষ্টির নাম বন্ধুত্ব
  • মাহবুব আলী খান 
  • বিএনপির রাজনৈতিক পুনর্বাসন রাষ্ট্র ক্ষমতা নাকি নির্বাসন?
  •   প্রবাসী বিএনপির কাণ্ডারি মুকিব : তপ্ত মরুর বুকে চাষাবাদ করছেন সবুজ ধানের শীষ
  • প্রসঙ্গ: ছাত্ররাজনীতি ও ছাত্র সংসদ নির্বাচন
  • তাদের নিরবতাই বড় প্রমাণ
  • ভুয়া অ্যাওয়ার্ডের মতোই কী রামপালের অনাপত্তি?
  • এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।