ঢাকা | শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ ফাল্গুন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
বাংলাদেশ

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস নতুন সাত আন্তর্জাতিক রুট চালু করছে

বাংলাপেইজ রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে: ০৭-১২-২০১৭ ইং । ১৮:১১:৫৬

নতুন আরো সাতটি আন্তর্জাতিক রুটে ফ্লাইট চালু করতে যাচ্ছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস। এসব রুটে ফ্লাইট চলাচলের ব্যবসায়িক সম্ভাব্যতা যাচাই চলছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী লাভজনক রুট চিহ্নিত করে এসব রুটে ফ্লাইট চালু করার কার্যক্রম হাতে নিয়েছে বিমান। ফ্লাইট চালু করতে যাওয়া রুটগুলো হলো- ঢাকা-গুয়াংজু , মদিনা, কলম্বো, মালে, টোকিও, সিডনি ও টরেন্টো রুট। বিমান সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

এ বিষয়ে বিমানের মহাব্যবস্থাপক শাকিল মেরাজ জাগো নিউজকে জানান, আগামী বছরের ২৫ মার্চ চালু হচ্ছে চীনের গুয়াংজু ফ্লাইট। ঢাকা-মদিনা রুটে ফ্লাইট চলাচলের ব্যবসায়িক সম্ভাব্যতা যাচাই সম্পন্ন হয়েছে। ব্যবসায়িকভাবে লাভজনক মনে হওয়ায় এ রুট চালুর বিষয়টি মোটামুটি চূড়ান্ত। অল্প সময়ের ব্যবধানে উড়োজাহাজ সংগ্রহের প্রক্রিয়া শেষ হলেই এ রুটে ফ্লাইট চলাচলের দিন-তারিখ ঠিক করা হবে।

তিনি বলেন, নিকট ভবিষ্যতে ঢাকা-কলম্বো ও ঢাকা-মালে রুটের ফ্লাইট পরিচালনার দিন তারিখ ঘোষণা করা হবে। এছাড়া টোকিও, সিডনি ও টরেন্টো রুটে ফ্লাইট চলাচলের ব্যবসায়িক সম্ভাব্যতা যাচাই চলছে। এসব রুটে ফ্লাইট চালুর আগেই বিমান বহরে ২০১৮ সালের আগস্ট ও নভেম্বরে যুক্ত হচ্ছে বোংয়িংয়ের সর্বাধুনিক দুটি এয়ারক্রাপ্ট ৭৮৭ ড্রিমলাইনার। ২০১৯ সালের আগস্টে আরো দুটি বোয়িং ৭৮৭ ড্রিমলাইনার যোগ দেবে বিমানবহরে।

অত্যাধুনিক এসব এয়ারক্রাপ্ট আসার আগেই টোকিও, সিডনি ও টরেন্টো রুটে ফ্লাইট চলাচলের ব্যবসায়িক সম্ভাব্যতা শেষ করবে বিমান। উড়োজাহাজ সংগ্রহ ও ব্যবসায়িকভাবে লাভজনক মনে হলে ২০২০ সালের মধ্যে আরো কয়েকটি রুটে ফ্লাইট চালুর পরিকল্পনা করবে বিমান।

এ প্রসঙ্গে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) এএম মোসাদ্দিক আহমেদ বলেন, লাভজনক রুট চিহ্নিত করে ও সেসব রুটে ফ্লাইট চালু করা বিমানের নিয়মিত কার্যক্রমেরই অংশ। এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনাও রয়েছে। আমরা প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা ও প্রত্যাশা পূরণে নিরলস কাজ করে যাচ্ছি।

উল্লেখ্য, একসময় বাংলাদেশ ও জাপানের মধ্যে সরাসরি আকাশপথে যোগাযোগ ছিল। বাংলাদেশ বিমানের ঢাকা-টোকিও রুটটি চালু হয়েছিল ১৯৭৯ সালে। ১৯৮১ সালে সাময়িক বিরতির পর তা আবার চালু হয়। তখন ঢাকা-নারিতা রুটে ফ্লাইটটি চলত। ১৯৯২ সালে এ ফ্লাইট নাগোয়া পর্যন্ত সম্প্রসারণ করা হয়। সেটিও পরে বন্ধ হয়ে যায়। বিমানের উড়োজাহাজ বহরে বর্তমানে ৪টি বোয়িং ৭৭৭-৩০০ ইআর, ৪টি বোয়িং ৭৩৭-৮০০, ২টি বোয়িং ৭৭৭-২০০ ইআর, ২টি এয়ারবাস ৩৩০-২০০, ২টি ড্যাশ ৮–কিউ৪০০ অর্থাৎ মোট ১৩টি উড়োজাহাজ রয়েছে। এর মধ্যে ৪টি বোয়িং ৭৭৭-৩০০ ইআর, ২টি বোয়িং ৭৩৭-৮০০ অর্থাৎ মোট ৬টি উড়োজাহাজ বিমানের নিজস্ব এবং বাকি ৭টি উড়োজাহাজ ভাড়ায় নেয়া।


#এস আর/বাংলাপেইজ

শেয়ার করুন
সর্বশেষ খবর বাংলাদেশ
  • পুলিশি নির্যাতনের প্রতিবাদে বিএনপির বিক্ষোভ কর্মসূচি সোমবার
  • পরিচয় দেয়ার পরও পুলিশি নির্যাতনের শিকার সাংবাদিক
  • সরকার যেভাবে দেশ শাসন করছে সেটা রোমের চেয়েও ভয়ঙ্করঃ মওদুদ
  • ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা বিএনপির সভাপতি গ্রেফতার
  • বিএনপি নেত্রী নিপুর রায় আহত হয়েহাসপাতালে
  • বিএনপি নেতা আলাল আটক
  • বিএনপির শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে হামলা চালিয়েছে পুলিশঃ মির্জা ফখরুল
  • ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের আশঙ্কায় সরাইলে ১৪৪ ধারা জারি
  • বিএনপি কালো পতাকা কর্মসূচিতে পুলিশের লাঠিচার্জ, ব্যাপক ধরপাকড়
  • আবারও বাড়ল চালের দাম
  • আজ বিএনপির কালো পতাকা প্রদর্শন
  • ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের নিপীড়নমূলক অংশগুলো বাতিল করুন
  • পোশাককর্মীকে ধর্ষণের দায়ে : গ্রেফতার ২
  • ট্রেন দূর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেলেন প্রতিমন্ত্রী মান্নান
  • রাজধানীতে মাদকসহ গ্রেপ্তার ৫৬
  • ফেসবুকে বিদেশি নাগরিক পরিচয়ে প্রতারণার ফাঁদ
  • মুক্তির সংগ্রাম ছিল সমগ্র জনগনের: মেনন
  • খালেদা জিয়ার অর্থদণ্ড স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট
  • দুর্নীতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় বাংলাদেশের উন্নতি
  • এত বড় অন্যায় মানা উচিত নয়ঃ মান্না
  • এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।