ঢাকা | বুধবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৭ খ্রীষ্টাব্দ | ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
ফিচার ॥ আতিকুর রহমান নগরী ॥

বাংলা আমার মায়ের ভাষা

প্রকাশিত হয়েছে: ০৬-০২-২০১৭ ইং । ২১:৫৮:২১

ভাষা আল্লাহ পাকের এক স্পেশাল নেয়ামত। বিশ্বের প্রত্যক জাতিরই স্ব-স্ব ভাষা রয়েছে। আমাদের ভাষা হচ্ছে বাংলা। বাংলা আমাদের মায়ের ভাষা। বাংলা ভাষাকে মাতৃভাষা বলার কারণ হল, একটি শিশু জন্মের পর যখন মুখ ফুটে কথা বলতে শিখে তখন তার প্রথম কথা হয় ‘‘মা’’,‘‘আম্মু’’ ইত্যাদি। অথবা মাতৃভাষা বলার আরেকটি কারণ এও হতে পারে যে ভাষা শিক্ষার প্রধান মাধ্যম হচ্ছেন আমাদের পরম শ্রদ্বাভাজন মা জননী। বাংলা ভাষা আমাদের জীবনের সাথে অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িত।

আমাদের পূর্বপুরুষরা বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের উনণতি সাধন এবং মুসলিম শাসকরা এ ভাষার পৃষ্ঠপোষকতা করলেও রাজভাষা হিসেবে তারা ফার্সি ভাষা ব্যবহার করেছিলেন। ১৭৫৭সালে আমরা ইংরেজদের কাছে স্বাধীনতা হারালাম। হারালাম রাষ্ট্রভাষা ফার্সিকে। ইংরেজরা রাজভাষা তথা রাষ্ট্রভাষা হিসেবে চালু করলো ইরেজি। প্রায় দু’শ বছর ইংরেজরা আমাদের শাসন করেছে। যারা তাদের ভাষা শিখেছিল ঘুরেছিল তাদের ভাগ্যের চাকা। আর যারা শিখেনি তারা অনেক পিছিয়েছিল। এ কারণে ঐতিহাসিক ডব্লিউ ডব্লিউ হান্টার বলেন,‘‘এদেশের মুসলিমরা ছিল শাসকের জাতি। কখনো তারা দরিদ্র হওয়ার আশংকা ছিলনা। কিন্তু বাস্তবতা হলো ইংরেজ শাসনে তারা এখন হত দরিদ্র জাতি।

১৯৪৭সালের ১৪ই আগষ্ট ভারত বিভক্ত হলেও মুসলিমদের জন্য আলাদা রাষ্ট্র গঠিত হয়, এর নাম রাখা হয় পাকিস্তান। আর তা দুই প্রদেশে বিভক্ত একটি দেশ। ভারতের পূর্বাঞ্চলে ছিল পূর্বপাকিস্তান। আর পশ্চিমাঞ্চলে ছিল পশ্চিম পাকিস্তান। পূর্ব পাকিস্তানের মানুষ অর্থ্যাৎ আমরা নৃ-তাত্ত্বিক দিক থেকে বাঙ্গালী। আমাদের মাতৃভাষা বাংলা আর পশ্চিম পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা হবে উর্দু। অর্থ্যাৎ একই রাষ্ট্রে আমরা দু’টি ভাষার আশাবাদি ছিলাম। এই আশা করাটা আমাদের অন্যায় ছিল না। যার যার ভাষায় মানুষ কথা বলবে, কাজ করবে, লেখাপড়া করবে, শিখবে, জানবে এটাইতো স্বাধীনতা। ভাষার বিষয় নিয়ে পাকিস্তান রাষ্ট্রের বড় বড় নেতাদের মধ্যে মতানৈক্য দেখা দিল। কেউ বললেন: যেহেতু পাকিস্তান ইসলামী রাষ্ট্র সেহেতু পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা আরবী হওয়া উচিৎ। আর কেউ কেউ বলেন, বাঙ্গালী মুসলমানেরা উর্দু বুঝে সুতরাং উর্দুই হবে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা। এসব নিয়ে যখন গড়িমসি চলছিল। তখন পূর্বপাকিস্তানের মানুষ রাষ্ট্রভাষা বাংলার জন্য রীতিমত আন্দোলন শুরু করেছিল।

রাষ্ট্রভাষা বাংলা দাবিটি বিংশশতাব্দির প্রথম থেকে ১৯৪৭-৫২ পাঁচ বছরের প্রত্যক্ষ আন্দোলনের ফলে পাকিস্তান সরকার রাষ্ট্রভাষা হিসাবে বাংলাকে স্বীকৃতি প্রদান করে। কিন্তু দুঃখজনক বিষয় হলো ১৯৫২সালের ২১শে ফেব্রুয়ারীতে রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনের শেষ পর্যায়ে বরকত, সালাম, রফিক ও জব্বারসহ বহু মানুষকে জীবন দিতে হয়। এবং পূর্ববাংলার কারাগারগুলো ভাষা সৈনিকে ছিল ভরপুর। পৃথিবীতে মাতৃভাষার জন্য প্রথম জীবন দিয়েছে একমাত্র বাংলার মানুষ।

জাতিসংঘ ২১শে ফেব্রুয়ারীকে ‘আমত্মর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ হিসেবে ঘোষনা করেছে। একসময় ২১শে ফেব্রুয়ারী ছিল ‘‘শহীদ দিবস’’ এখন তা আমত্মর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। ‘বাংলা’ এখন বাংলাদেশের রাষ্ট্রভাষা। বাংলা আমার মায়ের ভাষা। এ ভাষাকে আরো সমৃদ্ধ করতে হবে। আর খেয়াল রাখতে হবে বিজাতীয়দের ভাষা যেন আমাদের এ মায়ের ভাষাকে ধবংস না করে। মাতৃভাষার প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়া, মাতৃভাষার ক্বদর করা, বিজাতীয় ভাষা ছেড়ে দিয়ে নিজ মাতৃভাষার চর্চাই হোক ভাষা দিবসের অঙ্গিকার। মহান ভাষা দিবস, যারা এই মাতৃভাষা বাংলার জন্য জীবন দিয়েছেন আল্লাহপাক তাদেরকে যেন জান্নাতুল ফেরদাউস দান করেন-আমিন।

লেখক: প্রাবন্ধিক, কলামিস্ট

শেয়ার করুন
সর্বশেষ খবর ফিচার
  •   জিয়া পরিবারের জনপ্রিয়তায় ভয় পেয়ে সরকার অসত্য তথ্য পরিবেশন করছে-সৌদিআরব বিএনপি
  • সহজেই ঘুরে আসুন দিল্লী, কাশ্মীর
  • জাবি মুখরিত পরিযায়ী পাখির কলকাকলিতে
  • বঙ্গবন্ধু কোন দলের নয়, বঙ্গবন্ধু বাঙালি জাতির
  • প্রকৃতির নিগূঢ় সান্যিধ পেতে চলুন ‘শ্রীমঙ্গলের লালমাটি টিলা’
  • অনেক কাজের কাজী লেবুর খোসা
  • ঘুরে আসুন রাবণ রাজার দেশ
  • ইফতারে পুরভরা সুজির কচুরি
  • অবহেলায় গোপালগঞ্জের ঐতিহ্যবাহি বর্নি বাওড়
  • ডাবলিনের বুকে যেন এক টুকরো বাংলাদেশ
  • শ্রীমঙ্গলে ফুটেছে ‘‘মে ফুল’’
  • কাপ্তাই লেকে ‘ফরমালিনমুক্ত ভাসমান ফলের হাঁট’
  • ব্রাজিলিয়ান নারী প্রেমের টানে বাংলাদেশে
  • নরসিংদীতে ৩ সহোদর হত্যাকারী বড় ভাই আটক
  • বাংলা আমার মায়ের ভাষা
  • নদী খনন না করলে মহা দূর্যোগের কবলে পড়বে দেশ
  • সিলেটের প্রাচীন জৈন্তা রাজ্যের ইতিবৃত্ত
  • ৪৫ বছরেও মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পাননি কবির
  • প্রতারণার অভিনব কৌশল
  • যশোরে হয়ে গেল ঐতিহ্যবাহী ঘোড়দৌড় প্রতিযোগিতা
  • এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।