ঢাকা | সোমবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৭ খ্রীষ্টাব্দ | ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
ইতিহাস ও ঐতিহ্য

তাহিরপুরে বিলুপ্তির পথে ১২ শ’ বছর আগের নিদর্শন

সংবাদদাতা, তাহিরপুর : প্রকাশিত হয়েছে: ১৫-০৬-২০১৭ ইং । ০৪:৩৩:৩৩

বিলুপ্তপ্রায় লাউড় রাজ্যের প্রাচীন নিদর্শন হাওলি জমিদার বাড়ি। সংরক্ষণের উদ্যোগ না থাকায় হারিয়ে যেতে বসেছে লাউড় রাজধানীর শেষ নিদর্শন টুকু। রাজা বিজয় সিংহের স্থাপত্য হাওলি জমিদার বাড়িটি দিন দিন দখলে নিয়েছে স্থানীয় জনসাধারন ও প্রভাবশালী মহল। দখলের এ মহোৎসব অব্যাহত থাকলে বছর দু’এক পরে কোন স্মৃতি চিহ্নই থাকবেনা দেশের অন্যতম প্রাচীন এই জমিদার বাড়ির।
বিভিন্ন তথ্য সূত্রে জানা যায়, সুনামগঞ্জ জেলার তাহিরপুর উপজেলার উত্তর বড়দল ও দক্ষিণ বড়দল ইউনিয়নের মধ্যবর্তী স্থান হলহলিয়া গ্রামে এক কালের প্রাচীন লাউড় রাজ্যের রাজধানী ছিল। লাউড় রাজ্যের চতুসীমা ছিল পশ্চিমে ব্রহ্মপুত্র নদী, পূর্বে জৈন্তায়া, উত্তরে কামরুপ সীমান্ত ও দক্ষিণে বর্তমানে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পর্যন্ত বিস্তৃতি ছিলো । এ রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন কেশব মিত্র নামে এক ব্রাহ্মণ। সম্রাট আকবরের শাসনামলে লাউড় রাজ্য খাসিয়াদের আক্রমণের শিকার হলে কিছু দিনের জন্য এর রাজধানী বর্তমান হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচংয়ে স্থানান্তারিত হয়েছিল। পরে লাউড় রাজ্যের গোবিন্দ সিংহ তা পুনরুদ্ধার করে আবার রাজধানী স্ব-স্থানে পুনঃস্থাপন করেন।
প্রায় ১২’শ বছর আগে রাজা বিজয় সিংহ রাজ বাড়িটি তৈরী করেন। যা আজোও হাওলি জমিদার বাড়ি নামে এলাকায় সমাদৃত। ৩০ একর জমির উপর প্রতিষ্ঠিত রাজ বাড়িটিতে ছিল বন্ধীশালা, সিংহদ্ধার, নাচঘর, দরবার হল, পুকুর ও সীমানা প্রাচীর। ১২’শ বছর পরেও এর কিছু স্থাপনা এখনও দৃশ্যমান রয়েছে। কিন্তু রক্ষণাবেক্ষণের উদ্যোগ না থাকায় শেষ নিদর্শন টুকুর বিভিন্ন অংশ ভেঙে নিচ্ছে স্থানীয় লোকজন। পিএসসির চেয়ারম্যান ডঃ সাদিক রাজবাড়িটি রক্ষণাবেক্ষণের উদ্যোগের লক্ষে একাধিকবার হাওলি রাজবাড়ি সরজমিন পরিদর্শন করেন।
বর্তমানে অযতœ, অবহেলা, রক্ষণাবেক্ষণ ও সংস্কার না করার ফলে ঐতিহাসিক লাউড় রাজ্যের শেষ নিদর্শন টুকু বিলুপ্তির পথে। প্রাচীন এই রাজধানী সংরক্ষণের মাধ্যমে হলহলিয়া একটি আকর্ষণীয় পযটন কেন্দ্র হিসাবে গড়ে উঠতে পারে। স্থানীয়দের দাবি এখনই প্রতœতত্ত্ব বিভাগ এই প্রাচীন নিদর্শনটি রক্ষার উদ্যোগ নিলে লাউড় রাজ্যের ইতিহাস কিছুটা রক্ষা করা যাবে।
ডিআর/৮৪

শেয়ার করুন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।